blog-theke-income

ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়?

আজকে আমরা ব্লগ কি ? ব্লগিং করে কত টাকা আয় করা যায়? এই সম্পর্কে জানবো। 

ব্লগ বা ব্লগ রাইটিং এক সময় মানুষ শখের বসে করে থাকতো। এবং ব্লগ লেখার আগে এতো বেশি রিসার্চও করতো না। কিন্তু বর্তমানে মানুষ ব্লগ করে ঘরে বসে টাকা ইনকাম করতে পারছে। ব্লগ থেকে টাকা ইনকাম করার আগে আমাদের ব্লগ সম্পর্কে বিস্তারিতো যানতে হবে। চলুন ব্লগ সম্পর্কে বিস্তারিতো জেনে আসি। 

ব্লগ কি ?

সহজ ভাষায় বললে, ব্লগার বা ব্লগ হলো অনলাইনে ওয়েবসাইট খুলে সেখানে নিজের লেখা পাবলিশ করাকেই ব্লগ বলে। ব্লগ শব্দটি হল ওয়েবব্লগের একটি সংক্ষিপ্ত রূপ । বেশিরভাগ ব্লগই কোন একটা নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর ভিত্তি করে সেটি সম্পর্কে বিস্তারিত লেখা হয়ে থাকে। এছাড়াও এমন কিছু ব্লগ থাকে যেগুলো ব্যক্তিগত দিনলিপি বা ডায়েরি হিসেবে প্রকাশ করা হয়। 

ব্লগ বলতে আমরা শুধু লেখাকেই বুঝি বা ব্লগ লেখা ভিত্তিক বলে আমরা মনে করে থাকি। কিন্তু ব্লগ বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে যেমনঃ শিল্প (আর্ট ব্লগ), ছবি (ফটো ব্লগ), ভিডিও (ভিডিও ব্লগ), সংগীত (এমপিথ্রী ব্লগ) ইত্যাদি। জুন ২০১৭ সালের টেকনোরাট্টির গবেষণা হিসাবে প্রায় বাইশ মিলিওনেরও বেশি ব্লগ রয়েছে।

ব্লগের যাত্রা

“ওয়েব্লগ” শব্দটি ১৯৯৭ সালের ১৭ ডিসেম্বর জর্ন বার্গার উদ্ভাবন করেন। এই “ওয়েব্লগের” সংক্ষিপ্ত রূপ হল ব্লগ। “ব্লগ” শব্দটি সর্বপ্রথম “পিটার মেরহোলজ” ১৯৯৯ সালে তার ওয়েবসাইটে মজা করে লিখেছিলেন। কিছু দিন পর “পাইরা ল্যাবসের ইভান উইলিয়ামস” বিশেষ্য এবং হিসেবে ব্লগেরকে ব্যবহার কোরা শুরু করেন, যা পরবর্তীতে খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠে। 

ব্লগার থেকে কি উপার্জন করা যায়?

এতক্ষণতো আমরা ব্লগ সম্পর্কে বিস্তারিত জানলাম , এখন আমরা ব্লগ থাকে কি টাকা উপার্জন করা যাই নাকি সেটা সম্পর্কে জানবো। ব্লগিং বিষয়টা বর্তমানে অনেক পরিবর্তন হয়ে গেছে। এক সময় মানুষ শখের বসে করে থাকতো যা এখন মানুষ পেশা হিসাবে নেয়া শুরু করছে। ব্লগিং করে বর্তমানে মানুষ লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করছে। ব্লগার সাইট থেকে ইনকাম করার মুল রাস্তা বা পথ হল ওয়েবসাইটে মানুষ কেমন ভিজিট করছে। ভিজিটরের উপস্থিতির উপর নির্ভর করে ইনকাম হয়ে থাকে। এবং “গুগল এডসেন্স” দ্বারা অনেক টাকা উপার্জন করা যায়। CTR, CPC, website view, বিভিন্ন মাধ্যম থেকে উপার্জন করা যায়।

বিজ্ঞাপন থেকে আয় 

যেকোনো ব্লগার সাইটে ঢুকলেই দেখা যাই বিভিন্ন কোম্পানি বা সফটওয়্যারের অ্যাড দেখাচ্ছে। অ্যাড প্রচারের মাধ্যমে ব্লগার সইতেগুলো অনেক টাকা ইনকাম করে থাকে । ব্লগারের সাথে অ্যাড একে অপরের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত। বিভিন্ন কোম্পানি ব্লগার ওয়েবসাইটে তাদের অ্যাড প্রচার করে আপনার একাউন্টে টাকা দিয়ে থাকে। জনপ্রিয় কিছু অ্যাড নেটওয়ার্ক হলঃ

  1. Google AdSense

  2. Media.net

এগুলো ছাড়াও আরো অনেক অ্যাড নেটওয়ার্ক রয়েছে যেগুলো থেকে অ্যাড প্রচার করা হয়। এগুলোর মধ্যে সবচেয়ে সহজ এবং খুব তাড়াতাড়ি অ্যাড অ্যাপ্রুভ পাওয়া যায় গুগল এডসেন্স থেকে। মিডিয়া.নেট থাকে অ্যাপ্রুভ পেতে অনেক সময় লাগে। কিন্তু মিডিয়া.নেট গুগল এডসেন্স থেকে বেশি টাকা দিয়ে থাকে। 

CPC বা Cost Per Click

প্রতিটি ক্লিকে কত টাকা আসে সেটিকে CPC বা “Cost Per Click” বলে। google AdSense সহ আর অনেক প্লাটফরম আছে যেখান থেকে আয় করা যাই তার মধ্যে CPC একটি। ওয়েবসাইটে অ্যাড দেয়া পর সেই অ্যাডে ভিজিটর ক্লিক করার পর প্রতি ক্লিকে যেই টাকা দেয়া হয়ই তাকে CPC বলতে বলে। CPC পুরটাই নিরভর করে ওয়েবসাইটের ভিজিটরের উপর। ওয়েবসাইটে যত বেশি ভিজিটর আসবে CPC তত বেশি আসবে । আপনি আপনের ওয়েবসাইটে যত বেশি অডিয়েন্স ধরে রাখতে পারবেন তত বেশি ইনকাম করা সম্ভব। 

আপনার নিশের উপর উপার্জনের অনেকটাই নির্ভর করে। কারণ যদি ওয়েবসাইটে একটি নির্দিষ্ট নিশ থাকে সেখেত্রে ভিজিটরের পরিমান তেমন আসবে না। তাই বিভিন্ন ধরনের নিশ নিয়ে কাজ করলে ভিজিটর বারবে আর সেখান থেকে আর বেশি উপার্জন করতে পারবেন।

কি কি ধরনের ব্লগ লিখে আয় করা যায়?

আপনের ব্লগার ওয়েবসাইটে যেকোন ধরনের লেখালেখি করে আয় করতে পারবেন। আপনি চাইলে আপনের পছন্দের বিষয় নিয়েও লেখতে পারেন। আপনি যে বিষয়ে ভালো লিখতে পারবেন বা যেটা সম্পর্কে আপনের ধারনা আছে সিটি নিয়েও লিখতে পারবেন। নিচে কিছু বিষয় তুলে ধরেছে যা নিয়ে আপনি লিখতে পারেন।

  1. শিক্ষামূলক 
  2. ক্যারিয়ার বিষয়ক
  3. ফ্যাশন রিলেটেড
  4. খেলাধুলা
  5. রাজনীতি 
  6. ইসলাম 
  7. টেকনোলজি
  8. ইন্টারনেট
  9.  প্রযুক্তি

এছাড়াও আরও বহু বিষয় আছে মানুষের জানা অজানা সকল বিষয় নিয়ে লিখতে পারেন। আপনের সাইটে যা নিয়েই লিখুন না কেন আপনি যদি প্রতিদিন পোস্ট করতে পারেন তাহলে ওয়েবসাইটে বেশি ট্রাফিক আনা সম্ভব। লেখার বিষয়বস্তু সম্পর্কে সুস্পষ্ট ভাবে ফুটিয়ে তুলতে হবে।

অনলাইন কোর্স তৈরি করে আয়

বর্তমানে প্রতিযোগিতামূলক বাজারে নিজেকে টিকিয়ে রাখার জন্য স্কিল খুবই প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। ক্যারিয়ারের উন্নতির জন্য স্কিলের কোনো বিকল্প নেই।  আপনার যদি একটি ব্লগার ওয়েবসাইট থাকে তাহলে আপনি আপনার স্কিলগুলো মানুষের কাছে শেয়ার করে ইনকাম করতে পারবেন। 

আপনার কোর্সে গুলো যদি ১০০০ টাকা করে হয় আর ২০ জন মানুষ আপনার কোর্স কিনে থাকে তাহলে আপনি প্রতি কোর্সে ২০,০০০ টাকা পেয়ে যাচ্ছেন। আপনার কোর্স থেকে যদি তারা উপক্রিত হয় তাহলে অন্যদের কোর্স করতে উৎসাহিত করবে। যা আপনার জন্য অনেক ভল। 

আপনি বিভিন্ন ধরনের কোর্স করাতে পারেন। 

ব্লগ কি ? ব্লগ থেকে কিভাবে টাকা ইনকাম করা যাই এই সব জিনিস সম্পর্কে আপনাদের বলার চেষ্টা করেছি। আপনাদের ব্লগ সম্পর্কে আর কোন সমস্যা থাকার কথা না। ব্লগ করে আরো অনেক ভাবে ইনকাম করা যায়। এখানে মোটামুটি একটি ধারনা দেয়া হয়েছে। 

ব্লগ সাধারন মানুষ থেকে সুরু করে সবাই করতে পারে। তায় ব্লগ সেক্টরটাকে ফ্রিল্যান্সিং হিসাবে অনেকে বেছে নিচ্ছে। ব্লগ সাইটে যত সময় দিবেন এটা থেকে তত ইনকাম করতে সক্ষম হবেন।

আমাদের এই আর্টিকেলটি সম্পর্কে যদি আপনাদের কোন ধরনের প্রশ্ন বা পরামর্শ থেকে থাকে তাহলে নিচে কমেন্ট করে অবশ্যই জানিয়ে দেবেন।

Default image
shipon al hasan
Articles: 10

Leave a Reply