গ্রীষ্মকালীন রোগ প্রতিরোধের উপায়

গরম বাড়ার সাথে সাথেই বিভিন্ন ধরনের রোগের সম্মূখিন হতে হয়। যেমন জ্বর , কাশি, সর্দি, পেট ব্যথা এরোগ গুলো বেশি লক্ষ করা যায়। গ্রীষ্মকালে দিনের গরম আর ভোরের গরমের মধ্যে অনেক পার্থক্য থাকে। আবহাওয়ার এই ভিন্নতা প্রভাব ফেলে মানবদেহে। কোনো একটি কাজ করলেই আমরা ঘামিয়ে যাই । ঋতু পরিবর্তনের ফলে আমরা শারীরিক ভাবে অনেক অসুস্থ হই। যদিও রোগগুলো সাধারন কিন্তু সচেতনতার অভাবে অনেক সময় মারাত্নক ‍ক্ষতি করতে পারে। তাই যেই ধরনের রোগই হোকনা কেন আমাদের যত্ন সহকারে তার চিকিৎসা করতে হবে। গ্রীষ্মকালীন রোগ প্রতিরোধের উপায় জানা থাকলে আমরা অনেক ধরনের রোগ হতে রক্ষা পাবো।

কারা বেশি আক্রান্ত হয়

দুই  শ্রেনীর মানুষ অর্থাৎ শিশু ও বয়স্করা গ্রীষ্মকালীন রোগব্যাধিতে বেশি আক্রান্ত হয়। এ ছাড়া গর্ভবতী এবং যে রোগীরা খুব একটা হাঁটাচলা করতে পারেন না তাদেরও রোগ সংক্রমণের ঝুঁকি থাকে।

এ সময়ের রোগ

প্রধানত ডায়রিয়া ও আমাশয় , সর্দি , কাশি, জ্বর রোগই প্রধান। টাইফয়েড জ্বর গ্রীষ্মকালীন দূষিত পানীয় ও খাদ্য থেকে হয়ে থাকে। অস্বাস্থ্যকর খাবারের ফলে লিভারের জন্ডিস হতে পারে। অধিক তাপমাত্রার ফলে ঘামাচি হতে পারে। যারা বাইরে অতিরিক্ত গরমে কাজ করেন তাদের হিট এক্সজশন ও হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

 

বিশুদ্ধ পানি ও পানি পানের সচেতনতা

পানির অপর নাম জীবন। কিন্তু কোন ধরনের পানির জন্য কথাটি প্রযোজ্য ? পানি সবসময় আপনার জীবন হতে পারে না । অবিশুদ্ধ পানি আপনার মরনের কারন ও হতে পারে। আমরা গরমের সময় পরিশ্রম করি বা না করি আমরা একটু পর পর আমাদের পিপাসা পায়। তাই গরমের সময় সুস্থ থাকার জন্য পানি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। কিন্তু যদি আপনার পানি বিশুদ্ধ না হয় তাহলে মারাত্মক ক্ষতির সম্মূখিন হতে হবে। তাই আমাদের রাস্তাঘাটের পানি , শরবত, জুস ইত্যাদি খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। তা না হলে আমরা যেকোনো পেটের পীড়ায় আক্রান্ত হতে পারি। জ্বর, বমি বমি ভাব , খাওয়ায় অনীহা , ডায়রিয়া কারও কারও কোষ্ঠকাঠিন্য ইত্যাদি হলে ধরে নিতে হবে যে, পেটের সমস্যার জন্যই এসব হচ্ছে।

আমাদের দেশে রাস্তার পাশে অর্থাৎ স্ট্রিট ফুড অনেক অস্বাস্থ্যকর তাই এসব খাবার থেকেও বিরত থাকতে হবে। আপনি পেটের পীড়া বা পেটে অন্যান্য সমস্যা মুখোমুখি হতে না চাইলে ঘরের বিশুদ্ধ পানি পানের বিকল্প নেই। তাছাড়া ঘরে তৈরিকৃত লেবুর শরবত, ডাবের পানি, ফলের রস ও ভিটামিন-সি যুক্ত ফল খেতে হবে যা আপনাকে গরমের সময় সুস্থ রাখতে সাহার্য করবে । শহরাঞ্চালে পানি ফুটিয়ে বা ইলেকট্রিক লাইনের সঙ্গে সংযুক্ত পানি বিশুদ্ধকরণ মেশিনের সাহায্যে  ফিল্টার করা পানি খাওয়া নিরাপদ। গ্রামে স্যালো বা ডিট টিউবঅয়েলের পানি নিরাপদ। বিশেষ করে পুকুর, খাল বা ডোবার পানি পান না করাই উত্তম।

 

সতেজ খাবার গ্রহন

গ্রীষ্মকালীন রোগ প্রতিরোধের উপায় হলো একটি চ্যালেঞ্জ এর মতো। কিন্তু কিছু জিনিসের প্রতি একটু সতর্ক থাকলেই গ্রীষ্মকালীন রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। গরমের রোগ থেকে মুক্তি পেতে তাজা খাবার গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করে। তাই গরমের সময় আমাদের টাটকা খাবার খাওয়ার অভ্যাস করতে হবে। গরমের সময় খাবার রেখে দিলে তা ধিরে ধিরে বিষে পরিনত হয়।

খাবার তৈরিতে বিশুদ্ধ পানি ব্যবহার করতে হবে। খাবার খাওয়া এবং রান্নার পর অবশ্যই ঢাকনা দিয়ে রাখতে হবে। গরমে খাওয়ার আগে অবশ্যই খাবার আবার গরম করতে হবে। হোটেলে খাবার , বাহিরে খাবার এসব খাবার থেকে বিরত থাকতে হবে। কেননা এসব খাবারের ফলে ফুড পয়জনিং হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এর ফলে পেট-বুক জ্বালাপোড়া , অ্যাসিডিটি ,টক  ঢেকুর , পেট ব্যথাসহ আরো সমস্যা হতে পারে। তাই খাবার গ্রহনে সচেতন হতে হবে।

বাইরে বেরোনোর আগে সতর্কতা  ও করনীয়

প্রচন্ড সূর্যালোক দেহের জন্য ক্ষতিকর। অনেকের ‍ সূর্যালোকে অ্যালার্জি থাকে যাকে সান অ্যালার্জি থাকে। এর থেকে রক্ষা পেতে ঘর থেকে বের হবার সময় ছাতা নিয়ে বের হতে হবে বা কেমিক্যাল সানব্যাক ব্যবহার করতে হবে। যারা প্রচন্ড রোদে কাজ করে তাদের প্রচন্ড পরিমানে পানি, স্যালাইন ও ফলের রস ক্ষেতে হবে। গরমের সময় সুতার পাতলা কাপড় পরা উচিত এবং মাথায় ক্যাট পরা উচিত। এতে করে একটু হলেও গরম থেকে রক্ষা পাওয়া যাবে এবং স্বস্তিবোধ হবে।

ভাইরাসের ধরন নির্ণয়ে রক্ত পরীক্ষা-নীরিক্ষা করতে হবে। কবিরাজি, ওঝা এগুলো কোনো চিকিৎসার অংশ নয়, বিজ্ঞানসম্মত তো নয়ই। জন্ডিস সেলফ রিমিটিং ডিজিজ অর্থাৎ দুই-তিন সপ্তাহে এমনিতেই ভালো হয়ে যায়। রোগীর এ সময়কালের পর জন্ডিস থাকলে, পেট-হাত ও পায়ে পানি এলে, শরীরের কোনো অংশ থেকে রক্তক্ষরণ হলে, পেটে প্রচন্ড ব্যথা থাকলে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

 

Ilias Sami
Ilias Sami

This is Ilias Sami (In Bengali: ইলিয়াস সামি; Birthday: 29th October 2002, in Kushtia Sadar, Bangladesh), a Professional Digital Marketer and SEO Expert from Bangladesh. I am 19 years old in 2022. Studying at Dhaka Polytechnic Institute in CSE.

Articles: 14

Leave a Reply